রবিবার, ১৯ মে ২০২৪, ১০:৪২ অপরাহ্ন

অপচিকিৎসায় কিশোরের মৃত্যু, ৩ কবিরাজ আটক

প্রতিনিধির / ১৯৫ বার
আপডেট : শুক্রবার, ৩০ সেপ্টেম্বর, ২০২২
অপচিকিৎসায় কিশোরের মৃত্যু, ৩ কবিরাজ আটক
অপচিকিৎসায় কিশোরের মৃত্যু, ৩ কবিরাজ আটক

নীলফামারীর কিশোরগঞ্জে কবিরাজের অপচিকিৎসায় সোহেল রানা (১৪) নামে এক প্যারালাইজড কিশোরের মৃত্যু হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় ৩ কবিরাজকে আটক করেছে পুলিশ।

ঘটনাটি ঘটেছে বৃহস্পতিবার রাতে নীলফামারীর কিশোরগঞ্জের চাঁদখানা ইউনিয়নের সরঞ্জাবাড়ি গ্রামে। নিহত সোহেল রানা ওই গ্রামের কেরামত আলীর ছেলে।

আটককৃতরা হলেন- মাগুড়া ইউনিয়নের শাহ্পাড়া গ্রামের মৃত আবতাব উদ্দিনের ছেলে আনোয়ার হোসেন, একই গ্রামের মৃত মহির উদ্দিনের ছেলে সফিকুল ইসলাম ও মৃত জালাল উদ্দিনের ছেলে মোকাব্বর হোসেন।

নিহত ওই শিশুটির মা খালেদা বেগম জানান, স্বামী ঢাকায় রিকশা চালান। তার ছেলে সোহেল রানা দীর্ঘ ৪ বছর ধরে দুই পা অবশ রোগে ভুগছিল। মুশা পাকার মাথা গ্রামের মামুন নামে এক ব্যক্তির সঙ্গে তার পরিচয় হয়। ছেলের এ ঘটনা শুনে তিনি ওই কবিরাজদের তার বাড়িতে পাঠান।

এক সপ্তাহ বাড়িতে থেকে তার ছেলেকে সুস্থ করতে চুক্তি হয়। মঙ্গলবার তারা এসে আঙিনায় চতুর্ভুজ আকারে খুঁটি পুঁতে ও কলাগাছ লাগায়। বৃহস্পতিবার বিকাল পর্যন্ত সেখানে তার ছেলেকে ঝাড়ফুঁক করেন। বাঘের চামড়া ও অন্যান্য উপকরণ কিনতে ৩০ হাজার টাকা হাতিয়ে নেয়।

পরে গভীর রাতে আঙিনায় কলাগাছের মাঝখানে তার ছেলেকে শোয়ায়। হাত-পা খুঁটিতে বেঁধে দুই পায়ের ওপর ৪টি করে ইট তুলে নিজের পা দিয়ে ঠাসা দেয়। পরে ইটের ওপরে ২০ কেজি করে বালুর বস্তা তুলে দেওয়ায় ছেলের অস্থিরতা ও আর্তচিৎকারে তার মা কবিরাজদের বাধা দেন।

এ সময় কবিরাজরা তাকে ধাক্কা দিয়ে বাড়ি থেকে বের করে দেয়। কিছুক্ষণ পর তিনি বাড়িতে ঢুকে দেখেন তার ছেলে সোহেল নিস্তেজ হয়ে গেছে। কবিরাজরা গরম পানি ফুঁ দিয়ে তার মুখ ও গায়ে ছিটাচ্ছে। পরে শিশুটি মারা গেছে বুঝতে পেরে এলাকাবাসী ৩ কবিরাজকে আটক করে পুলিশে খবর দেন।

এ ব্যাপারে কিশোরগঞ্জ থানার ওসি রাজীব কুমার রায় জানান, এ ঘটনায় শিশুটির বাবা বাদী হয়ে ৩ জনের বিরুদ্ধে মামলা করেছেন। ময়নাতদন্তের জন্য শিশুটির লাশ মর্গে ও আসামিদের কারাগারে পাঠানো হয়েছে। ঘটনাস্থল থেকে বিভিন্ন প্রকার কবিরাজি উপকরণ জব্দ করা হয়েছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো সংবাদ
%d bloggers like this:
%d bloggers like this: