সোমবার, ০৪ মার্চ ২০২৪, ০৫:২৫ অপরাহ্ন

চাঞ্চল্যকর গৃহবধু সাজেদা হত্যার রহস্য উদঘাটন

প্রতিনিধির / ৮৬ বার
আপডেট : মঙ্গলবার, ১১ অক্টোবর, ২০২২
চাঞ্চল্যকর গৃহবধু সাজেদা হত্যার রহস্য উদঘাটন
চাঞ্চল্যকর গৃহবধু সাজেদা হত্যার রহস্য উদঘাটন

জয়পুরহাটে চাঞ্চল্যকর গৃহবধু সাজেদা ইসলাম সাজু হত্যা মামলার প্রধান দুই হত্যাকারীকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। পরকীয়ার কারণে হত্যাকারীরা তাকে মুখে কসটেপ, গলায় ওড়না পেচিয়ে শ্বাসরোধ করে হত্যা করেছে বলে গ্রেপ্তারকৃতরা আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছে।

সোমবার দুপুরে জয়পুরহাট পুলিশ সুপার কার্যালয়ের কনফারেন্স রুমে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন ও অপরাধ) তরিকুল ইসলাম এক সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান।

গ্রেপ্তারকৃতরা হলেন জয়পুরহাট সদর উপজেলার খনজনপুর এলাকার আনিছুর রহমানের ছেলে আবু সাঈদ (২৩) ও একই মহল্লার জহুরুল ইসলামের ছেলে রাব্বী হোসেন (২৩)।

সংবাদ সম্মেলনে তরিকুল ইসলাম জানান, জয়পুরহাট শহরের জানিয়ার বাগান এলাকায় ডাঃ পারভীনের ৫তলা বাসায় ছোট মেয়ে আরিফাকে নিয়ে ভাড়া থাকতেন সাজেদা ইসলাম সাজু। তার স্বামী হাফিজুল ইসলাম জেলার বাইরে চাকরি করতেন। আর তার মেয়ে যেই স্কুলে পড়াশোনা করতো সেই স্কুলেই কম্পিউটার অপারেটর পদে চাকরি করতেন আবু সাঈদ। সেই স্কুলে যাওয়া আসার সুবাদেই সাঈদের সাথে পরকীয়া সম্পর্ক হয় সাজেদার। এই সম্পর্ক দীর্ঘ দিন থেকে চলে আসছিল।

গত ২৭ সেপ্টেম্বর সকালে মেয়ে আরিফা এসএসসি পরীক্ষা দিতে যায়। সেইদিন আবু সাঈদের সাথে সাজেদার মোবাইলে কথা হয়। এরপর বাড়িতে কেউ না থাকার সুযোগে সাঈদ-রাব্বীকে নিয়ে ওই গৃহবধুর বাড়িতে আসেন। এসময় সাজেদাকে একা পেয়ে তারা তার সাথে শারীরিক সম্পর্ক করতে চাইলে সে বাধা দেয়।

তখন আসামিরা সাজেদার হাত-পা চেপে ধরে গলায় ওড়না পেচিয়ে শ্বাসরোধে হত্যা করে ২ হাত পেছনে বেধে মুখে কচটেপ লাগিয়ে শয়ন কক্ষের মেঝেতে লাশ ফেলে রেখে পালিয়ে যায়। পরে তার মেয়ে পরীক্ষা দিয়ে বাড়িতে এসে তার মায়ের লাশ দেখতে পেয়ে পুলিশকে খবর দেয়।

খবর পেয়ে পুলিশ বিকালে লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য হাসপাতালের মর্গে পাঠায়। এ ঘটনায় ২৯ সেপ্টেম্বর গৃহবধুর স্বামী বাদী হয়ে জয়পুরহাট সদর থানায় একটি হত্যা মামলার দায়ের করেন।

তিনি আরও জানান, ঘটনার পর থেকেই হত্যার আসল রহস্য উদঘাটনে মাঠে নামে পুলিশ, ডিবি পুলিশ ও গোয়েন্দা বিভাগ। এরই ধারাবাহিকতায় ঘটনার সাথে জড়িত রাব্বীকে ফুলবাড়ী থানা এলাকা থেকে গ্রেপ্তার করা হয়। পরে তার দেওয়া জবানবন্দিতে আবু সাঈদকে গ্রেপ্তার করে কারাগারে পাঠানো হয়।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপারেশন এন্ড অপস্) ফারজানা হোসেন, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) মোশফেকুর রহমান, সদর থানার ওসি সিরাজুল ইসলাম, জেলা ডিবি পুলিশের ওসি শাহেদ আল মামুন, জয়পুরহাট প্রেসক্লাবের সভাপতি অ্যাডভোকেট নৃপেন্দ্রনাথ মণ্ডলসহ বিভিন্ন প্রিন্ট ও ইলেক্ট্রনিক্স মিডিয়ার সাংবাদিকরা।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো সংবাদ
%d bloggers like this:
%d bloggers like this: