রবিবার, ২৩ জুন ২০২৪, ১২:৩৭ পূর্বাহ্ন

নিষেধাজ্ঞা শুরুর আগে ইলিশ শিকারে ব্যস্ত জেলেরা

প্রতিনিধির / ১৩৩ বার
আপডেট : সোমবার, ৩ অক্টোবর, ২০২২
নিষেধাজ্ঞা শুরুর আগে ইলিশ শিকারে ব্যস্ত জেলেরা
নিষেধাজ্ঞা শুরুর আগে ইলিশ শিকারে ব্যস্ত জেলেরা

মা ইলিশ রক্ষায় সরকারের দেওয়া আগামী ৭ থেকে ২৮ অক্টোবর পর্যন্ত ২২ দিনের নিষেধাজ্ঞা শুরু হচ্ছে ঝালকাঠির নদ-নদীগুলোতে। এ উপলক্ষে ইলিশ শিকারে নদীতে নামছেন জেলেরা। এ সময় নিষেধাজ্ঞার পূর্ব পর্যন্ত ইলিশ ধরতে কর্মযজ্ঞ চলছে জেলেদের মধ্যে। ঝালকাঠিসহ জেলার ইলিশের স্পটগুলো ঘুরে দেখা গেছে এ চিত্র।

শুক্রবার (৭ অক্টোবর) ঘড়ির কাঁটা যখন রাত ১২টায় পৌঁছাবে তখন থেকেই শুরু হবে নিষেধাজ্ঞা। এ সময় হাজারেরও বেশি জেলেরা বেকার হয়ে পড়বে। সরকারী সহায়তাই থাকবে তখন জেলেদের একমাত্র ভরসা।

এদিকে একশ্রেণির অসাধু জেলেদের জন্য নদী ও তীরবর্তী কয়েক স্থানে আভিযানিকদল ও জেলেদের মধ্যে চলবে লুকোচুরি খেলা। জেলেদের সচেতন করতে ইতিমধ্যে জেলা মৎস্য বিভাগের আয়োজনে সচেতনতামূলক অনুষ্ঠান পালন করা হয়েছে।

ইলিশের প্রধান প্রজনন মৌসুমে ইলিশ সংরক্ষণ অভিযান উপলক্ষে ২ অক্টোবর রোববার সকাল ১০টার দিকে জেলার নলছিটি উপজেলার মোল্লারহাট ইউনিয়নে বিষখালী নদী তীরবর্তী বৈশাখীয়া হদুয়া দরবার শরীফ মাঠে মৎস্যজীবীদের সঙ্গে জনসচেতনতা সভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন জেলা প্রশাসক মো. জোহর আলী।

এ বিষয়ে কথা হয় শহরের জেলে পাড়ার অধির মালো, নবদ্বীপ মালোসহ কয়েকজনের সঙ্গে। তারা জানালেন, বছরের দুইটা সময়ে ইলিশ ধরার উপরে নিষেধাজ্ঞা আসে। মা ইলিশের নিষেধাজ্ঞা অক্টোবরে এবং জাটকা নিধনে নিষেধাজ্ঞা জানুয়ারীতে। এই নিশেধাজ্ঞার সময়ে আমরা বেকার সময় পার করি। এ অল্প সময়ের জন্য আমাদের ভিন্ন কোনো পেশায়ও যাওয়া সম্ভব হয় না। সরকারি সহায়তার দিকেই তাকিয়ে বসে থাকি। কিন্তু আমাদের যে পরিমাণে চাল সহায়তা দেওয়া হয়, চাহিদার তুলনায় তা খুবই সামান্য। আবার আমাদের শুধুই চাল দেয় অন্যান্য নিতপ্রয়োজনীয় কিছুই থাকে না আমাদের জন্য। আমাদের কি শুধু চালেই পেট ভরবে? এজন্য প্রতিবছরই এ সময়টাতে আমরা ধারদেনা করে সংসার চালাই। নিষেধাজ্ঞা উঠে গেলে তখন মাছ শিকার করে দেনা পরিশোধ করি। এমন করতে করতেই জীবনটা অতিবাহিত করে এখন প্রায় শেষের পথে।

জেলা মৎস্য কর্মকর্তা রিপন ঘোষ জানান, মা ইলিশ নিধনে নিষেধাজ্ঞা শুরু হচ্ছে আগামী ৭ অক্টোবর। ইলিশ ডিম ছাড়ার সময় ২৮ অক্টোবর পর্যন্ত নির্ধারণ করেছে সরকার। এসময়ে সাগরের লবণ পানির মাছ ডিম ছাড়তে মিঠা পানিতে আশ্রয় নেয়। তাই ডিম ওয়ালা মা ইলিশ রক্ষায় এ ২২ দিন নিষেধাজ্ঞা রয়েছে। জেলেদের সচেতন করতে এবং দেশের সম্পদ রক্ষায় উদ্বুদ্ধ করতে সচেতনতামূলক সভা, প্রচার-প্রচারণা চলছে। নিষেধাজ্ঞা শুরু হলে নদীতে ৪টি আভিযানিক টিম সবসময় দায়িত্ব পালন করবে। এছাড়াও স্ট্রাইকিং ফোর্স ও ভ্রাম্যমাণ আদালত দায়িত্ব পালন করবে। আইন অমান্যকারীদের বিধান অনুযায়ী শাস্তি দেওয়া হবে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো সংবাদ
%d bloggers like this:
%d bloggers like this: